আইআইইউসি’র অনুপস্থিত ১৭০ শিক্ষার্থী কোথায়?

নিউজ ডেস্ক : চট্টগ্রামের বেসরকারি আন্তর্জাতিক ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়ের (আইআইইউসি) প্রায় ১৭০ জন শিক্ষার্থীর হদিস নেই। বারবার তাগাদা দেওয়ার পরও তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে কোনপ্রকার যোগাযোগ করেনি। দীর্ঘদিন অপেক্ষার পরও কোন খোঁজ না পাওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এখন তাদের ভর্তি বাতিল করার চিন্তা করছে।

রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় ও কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় ঈদের জামাতে জঙ্গি হামলার ঘটনায় বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পাওয়ার পর দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের তালিকা দিতে চিঠি দেয় স্ব স্ব স্থানীয় থানা পুলিশ। পাশাপাশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কোন শিক্ষার্থী ১০ দিন বা তার বেশি অনুপস্থিত থাকলে সে শিক্ষার্থীর নাম, পরিচয় মন্ত্রণালয়কে জানানোর নির্দেশ দেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

শিক্ষামন্ত্রী ও পুলিশের নির্দেশের পর অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো আইআইইউসি কর্তৃপক্ষও তাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন ধরে অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের তালিকা তৈরি করে। এর মধ্যে ১৭৬ জন শিক্ষার্থীর সঙ্গে তারা কোনোভাবেই যোগাযোগ করতে পারেনি। এই শিক্ষার্থীদের অনুপস্থিত হিসেবে দেখিয়ে তারা একটি তালিকা স্থানীয় সীতাকুণ্ড থানায় জমা দেয়। তালিকায় নাম থাকা ছয় সাতজন শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরে আসলেও বাকিদের ব্যাপারে জানে না বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার নুরুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, পুলিশ আমাদের কাছ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন ধরে অনুপস্থিত আছে এমন শিক্ষার্থীদের তালিকা চেয়েছিল। এরপর আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ফ্যাকাল্টিতে দীর্ঘদিন ধরে ক্লাসে অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের তালিকা করে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলাম। এদের মধ্যে ১৭৬ জন শিক্ষার্থীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও আমরা তাদের পাইনি।পরে তাদের পূর্ণাঙ্গ পরিচয়ের তালিকা আমরা থানায় দিই।

তবে থানায় তালিকা দেওয়ার পর ছয় থেকে সাতজন শিক্ষার্থী ফিরে এসেছে জানিয়ে রেজিস্ট্রার আরও বলেন, অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের তালিকা পুলিশকে দেওয়ার পর ছয় থেকে সাতজন শিক্ষার্থী ফিরে এসেছে। এ সময় ক্লাসে অনুপস্থিতির কারণ হিসেবে তারা বিভিন্ন সমস্যার কথা জানিয়েছে। পাশাপাশি যোগাযোগ করেও না পাওয়ার বিষয়ে তারা বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম রেজিস্ট্রেশন না করাসহ নানা কারণে মুঠোফোন নম্বর বন্ধ থাকার কথা জানিয়েছে। এসব শিক্ষার্থীরা পুনঃভর্তি হয়েছে এবং নিয়মিত ক্লাস করছে এখন।

অনুপস্থিত প্রায় ১৭০ শিক্ষার্থী সম্পর্কে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত কী এমন প্রশ্নে আইআইইউসি রেজিস্ট্রার নুরুল ইসলাম বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মানুসারে এমনিতেই দুই সেমিস্টার ক্লাসে অনুপস্থিত থাকলে শিক্ষার্থীদের ভর্তি বাতিল হয়ে যায়। এসব শিক্ষার্থীরা যেহেতু দীর্ঘদিন ধরে ক্লাসে অনুপস্থিত তাই তারা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভর্তি বাতিলের পর্যায়ে রয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের তালিকা পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে সীতাকুণ্ড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইফতেখার হাসান বাংলানিউজকে বলেন, আমরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের তালিকা নিয়েছিলাম। এদের মধ্যে কিছু কিছু শিক্ষার্থী পাস করতে না পেরে চলে গেছে, আবার কেউ কেউ টাকার অভাবে পড়াশোনা স্থায়ী করতে পারেনি বলে জানিয়েছে। প্রায় সবার বিষয়ে আমরা স্ব স্ব থানা পুলিশের মাধ্যমে খোঁজখবর নিচ্ছি। তবে এখন পর্যন্ত অভিযুক্ত কাউকে পাইনি।

Print Friendly, PDF & Email
basic-bank

Be the first to comment on "আইআইইউসি’র অনুপস্থিত ১৭০ শিক্ষার্থী কোথায়?"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*