ট্রাম্পবিরোধী বিক্ষোভের দ্বিতীয় সপ্তাহ

নিউজ ডেস্ক : নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে শুরু হওয়া নজিরবিহীন বিক্ষোভ প্রথম সপ্তাহ পেরিয়ে দ্বিতীয় সপ্তাহে গড়িয়েছে। সোমবার দেশটির হাজার হাজার শিক্ষার্থী ক্লাস বর্জন করে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিজয়ী রিপাবলিকান ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ বিক্ষোভ করেছেন। এ সময় তারা আমার প্রেসিডেন্ট নয় বলে শ্লোগান দেন। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর থেকেই ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে বিক্ষোভ শুরু হয়। দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়া বিক্ষোভের মুখেই কট্টর ডানপন্থি স্টিফেন বেননকে নিজের চিফ স্ট্র্যাুটেজিস্ট হিসেবে বেছে নিয়েছেন ট্রাম্প।
শীর্ষ কৌশলবিদ হিসেবে বেননকে বেছে নেওয়ায় অনেকেই ট্রাম্পের সমালোচনা করেছেন। তাদের শঙ্কা, এই পদক্ষেপের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের শ্বেত জাতীয়তাবাদী আন্দোলন হোয়াই হাউসের শীর্ষ পর্যায়ে পৌঁছে যেতে পারে। লস অ্যাঞ্জেলস ইউনিফাইড স্কুল ডিস্ট্রিক্টের হিসাবমতে, ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করার জন্য শহরটির প্রায় চার হাজার শিক্ষার্থী ক্লাশ থেকে বের হয়ে যায়। ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্র থেকে অবৈধ অভিবাসীদের তাড়ানো এবং যুক্তরাষ্ট্র ও মেক্সিকোর সীমান্ত দেয়াল তোলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।
সিয়াটলের পাবলিক স্কুলগুলোর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ২০টি হাইস্কুল ও মাধ্যমিক স্কুলের প্রায় পাঁচ হাজার শিক্ষার্থী ক্লাশ ছেড়ে গিয়ে বিক্ষোভে সামিল হয়। এই সংখ্যা শহরটির মোট শিক্ষার্থীর ১০ শতাংশ বলে জানিয়েছেন স্কুল বিষয়ক মুখপাত্র লুক ডুয়েসি। পোর্টল্যান্ড, ওরেগন, মন্টগমারি কাউন্টি, মেরিল্যান্ড এবং স্যান ফ্রান্সিস বে এরিয়ার কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, শত শত তরুণ প্রতিবাদ মিছিলে যোগ দিয়েছে।
বিশ্বকে হতবাক করে গত ৮ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনকে হারিয়ে দেন রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প, যাকে ভোটের প্রচারের সময় নানা মন্তব্যেনর কারণে সমালোচনার মুখোমুখি হতে হয়েছে। তার এই জয়ে হতাশ হয়ে পড়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের অনেকে। নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর থেকেই নিউ ইয়র্ক থেকে লস অ্যাঞ্জেলস, যুক্তরাষ্ট্রে পূর্ব প্রান্ত থেকে পশ্চিম প্রান্ত পর্যন্ত বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।

Print Friendly, PDF & Email
basic-bank

Be the first to comment on "ট্রাম্পবিরোধী বিক্ষোভের দ্বিতীয় সপ্তাহ"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*