নড়াইলের এক্সপ্রেস মাশরাফির‘মোর্তুজা কটেজ’

নড়াইল প্রতিনিধি: নড়াইল এক্সপ্রেস মাশরাফি তার মায়ের স্বপ্ন পূরণ করতেই ‘মোর্তুজা কটেজ’ সীমিত ওভারের ক্রিকেটে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মোর্তুজার নতুন বাড়ি নির্মাণকাজ চলছে দ্রুত গতিতে। প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে নড়াইল এক্সপ্রেস তার নিজ এলাকায় বাড়িটি নির্মান করছেন। বাড়িটি তৈরি হলে গর্ভধারিণীকে উপহার দিতে চান বাংলাদেশের ক্রিকেটের এই বরপুত্র। মাশরাফির জন্মস্থান নড়াইল শহরের প্রাণকেন্দ্র মহিষখোলা এলাকায় পুরোদমে চলছে বাড়ির নির্মাণকাজ। ইতিমধ্যে বাড়ির মূল স্ট্রাকচার নির্মাণ শেষের পথে। এখন চলছে ছাদ ঢালাইয়ের কাঠামো তৈরির কাজ চলছে। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মোর্তুজার নতুন বাড়ি নির্মাণকাজ চলছে দ্রুত গতিতে। প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে নড়াইল এক্সপ্রেস তার নিজ এলাকায় বাড়িটি বানাচ্ছে। তৈরি হলে বাড়িটি তার গর্ভধারিণীকে উপহার দিতে চান বাংলাদেশের ক্রিকেটের এই বরপুত্র। সরেজমিনে দেখা যায়, মাশরাফির জন্মস্থান নড়াইল শহরের প্রাণকেন্দ্র মহিষখোলা এলাকায় পুরোদমে চলছে বাড়ির নির্মাণকাজ। ইতিমধ্যে বাড়ির মূল স্ট্রাকচার নির্মাণ শেষের পথে। এখন চলছে ছাদ ঢালাইয়ের কাঠামো তৈরির কাজ চলছে। মাশরাফির বাবা গোলাম মোর্তুজা স্বপন বলেন, ‘‘মাশরাফি তার মায়ের স্বপ্ন পূরণ করতেই ‘মোর্তুজা কটেজ’ নামে বাড়িটি তৈরি করছেন। ছাদ ঢালাইয়ের সময় মাশরাফি বাড়িতে থাকবে বলে আমাকে জানিয়েছে।’’ প্রায় তিন কাঠা জমির ওপর নিজেদের পুরনো বাড়িতেই নতুন ডুপ্লেক্স তুলছেন মাশরাফি। এর প্রতিটি ফ্লোর হবে এক হাজার ২৫০ স্কয়ার ফিটের। দ্বিতীয় তলায় থাকবে একটা মাস্টার বেডরুম। এছাড়াও থাকছে তিনটি বেডরুম। প্রতিটির সঙ্গেই ওয়াশরুম, বারান্দা। থাকবে একটা ফ্যামিলি লিভিং রুম আর একটা ড্রাই কিচেন। বাড়ির নিচতলায় থাকবে ড্রইং, ডাইনিং রুম, বড় একটা রান্নাঘর, একটি গেস্ট বেড রুম, একটি কমন বাথরুম, একটা সার্ভেন্ট বেডরুম আর তার সঙ্গে লাগোয়া একটা বাথরুম। বাড়ির সামনে থাকবে বিশাল উঠান। এছাড়া দুটি জিপ পার্ক করার ব্যবস্থা থাকছে বাড়িটিতে। রাজকীয় কিছু থাকুক বা নাই থাকুক, মাশরাফির বাড়িতে থাকছে ছোট্ট মাঠ। যেখানে খেলাধুলা করবে শিশুরা। ‘বর্ণা ইঞ্জিনিয়ারিং’ নামে একটি ডেভেলপার প্রতিষ্ঠানকে বাড়ি তৈরির দায়িত্ব দিয়েছেন মাশরাফি। প্রজেক্ট ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় এক কোটি টাকা। মাশরাফির প্রতিবেশী মো. শাহিন উদ্দিন বলেন, ‘নড়াইলে কোটি টাকার কোনো বাড়ি নেই। আমরা গভীর আগ্রহে আছি বাড়িটি দেখার জন্য।’ নড়াইল রেন্ট-এ-কারের ড্রাইভার সরাফত বলেন, ‘আমাদের ছোট শহর নড়াইলে অনেক কোটিপতি আছেন। তবে কোটি টাকার বাড়ি কারো নেই।’মাশরাফির মা হামিদা মোর্তুজা বলাকা বলেন, ‘আমার বড় সন্তান মাশরাফি। সে আমাকে অনেক কিছু দিয়েছে। তারপরেও এই বাড়িটি আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ উপহার। স্বপ্নের বাড়ি। সে দেশকেও অনেক কিছু দিয়েছে। আমি তার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চাই।’মাশরাফির বাবা গোলাম মোর্তুজা স্বপন বলেন, ‘‘মাশরাফি তার মায়ের স্বপ্ন পূরণ করতেই ‘মোর্তুজা কটেজ’ নামে বাড়িটি তৈরি করছেন। ছাদ ঢালাইয়ের সময় মাশরাফি বাড়িতে থাকবে বলে আমাকে জানিয়েছে।’’প্রায় তিন কাঠা জমির ওপর নিজেদের পুরনো বাড়িতেই নতুন ডুপ্লেক্স তুলছেন মাশরাফি। এর প্রতিটি ফ্লোর হবে এক হাজার ২৫০ স্কয়ার ফিটের। দ্বিতীয় তলায় থাকবে একটা মাস্টার বেডরুম। এছাড়াও থাকছে তিনটি বেডরুম। প্রতিটির সঙ্গেই ওয়াশরুম, বারান্দা। থাকবে একটা ফ্যামিলি লিভিং রুম আর একটা ড্রাই কিচেন বাড়ির নিচতলায় থাকবে ড্রইং, ডাইনিং রুম, বড় একটা রান্নাঘর, একটি গেস্ট বেড রুম, একটি কমন বাথরুম, একটা সার্ভেন্ট বেডরুম আর তার সঙ্গে লাগোয়া একটা বাথরুম। বাড়ির সামনে থাকবে বিশাল উঠান। এছাড়া দুটি জিপ পার্ক করার ব্যবস্থা থাকছে বাড়িটিতে। রাজকীয় কিছু থাকুক বা নাই থাকুক, মাশরাফির বাড়িতে থাকছে ছোট্ট মাঠ। যেখানে খেলাধুলা করবে শিশুরা। ‘বর্ণা ইঞ্জিনিয়ারিং’ নামে একটি ডেভেলপার প্রতিষ্ঠানকে বাড়ি তৈরির দায়িত্ব দিয়েছেন মাশরাফি। প্রজেক্ট ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় এক কোটি টাকা। মাশরাফির প্রতিবেশী মো. শাহিন উদ্দিন আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়কে জানান, ‘নড়াইলে কোটি টাকার কোনো বাড়ি নেই। আমরা গভীর আগ্রহে আছি বাড়িটি দেখার জন্য। ‘আমাদের ছোট শহর নড়াইলে অনেক কোটিপতি আছেন। তবে কোটি টাকার বাড়ি কারো নেই।’মাশরাফির মা হামিদা মোর্তুজা বলাকা আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়কে জানান, ‘আমার বড় সন্তান মাশরাফি। সে আমাকে অনেক কিছু দিয়েছে। তারপরেও এই বাড়িটি আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ উপহার। স্বপ্নের বাড়ি। সে দেশকেও অনেক কিছু দিয়েছে। আমি তার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চাই।

Print Friendly, PDF & Email
basic-bank

Be the first to comment on "নড়াইলের এক্সপ্রেস মাশরাফির‘মোর্তুজা কটেজ’"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*