যেভাবে শুরু অভিযান, যেভাবে শেষ

নিউজ ডেস্ক: মঙ্গলবার ভোরে রাজধানীর কল্যাণপুরে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে গোলাগুলিতে ৯ জঙ্গি নিহত হয়েছে। কল্যাণপুরে ৫ নম্বর রোডের ৫৩ নম্বর বাসাটিতে এখনো তল্লাশি চলছে। সেখানে বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক ও অস্ত্র রয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার। আইজিপি বলছেন, তাদের ধারণা নিহতরা জেএমবি সদস্য।

সোমবার রাত ১১টার দিকে পুলিশ যখন কল্যাপুরের মেসগুলোতে ‘ব্লক রেউড’ শুরু করে তখন কোনো ইঙ্গিত ছিল না ঘটনা এত বড় হয়ে দাঁড়াবে। স্থানীয়দের সহায়তায় সেখানে রাত ১১টার দিকে রেইড শুরু হয়।

প্রথমদিকে ভালোই চললে রাত পৌনে ১টার দিকে ৫ নম্বর সড়কের ৫৩ নম্বর বাসারে ৫ তলা থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। সঙ্গে সঙ্গে বিষয়টি পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়।

স্থানীয়রা জানান, জঙ্গিরা ‘নারায়ে তাকবির’ ও ‘আল্লাহু আকবর’ বলে পুলিশের উপর গুলি চালাতে শুরু করে। এসময় বেশ কয়েকটি বোমা বিস্ফোরণের শব্দও পাওয়া যায়। পুলিশ সাধারণ মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে পরামর্শ দেয়। রাতের এই গোলাগুলিতেই হাসান (২০) নামে স্থানীয় এক যুবক গুলিবিদ্ধ হন। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) ভর্তি করা হয়।

গোলাগুলির খবর পেয়ে পুলিশ-র‌্যাব–ডিবি-সোয়াটের বিপুল পরিমাণ সদস্যদে কল্যাণপুরে পাঠিয়ে দেয়া হয়। তাদের নির্দেশ দেয়া হয়, গোটা এলাকা ঘিরে ফেলতে। তবে রাতে কোনো অভিযান চালাতে নিষেধ করা হয় তাদের।

আইজিপি এ কে এম শহীদুল হকের নির্দেশনা অনুযায়ী, ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে সারা রাত কল্যাণপুরে এলাকায় অবস্থান নিয়ে থাকেন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। তার নির্দেশনা অনুযায়ী, ভোর ৫টা ৫১ মিনিটে শুরু হয় অভিযান। শেষ হয় ৬টা ৫১ মিনিটে। অভিযানের নাম দেয়া হয় ‘অপারেশন স্টর্ম ২৬।’

এরপর পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, এতে ৯ জঙ্গি নিহত হন।

অভিযান শেষে এই অভিযানের বিষয়ে আইজিপি বলেন, নিহত জঙ্গিদের গুলশানের মতো বড় ধরনের কোনো ঘটনা ঘটানোর পরিকল্পনা ছিল। তিনি আরো বলেন, আইএস বলা হলেও এরা কেউ আসলে আইএস নয়। সন্দেহ করা হচ্ছে এরা জেএমবি। গুলশানের মতো বড় কোনো ঘটনা ঘটানোর পরিকল্পনা ছিল এদের।

এদিকে এই ঘটনার পর নিরাপত্তাজনিত কারণে কল্যাণপুরের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হলি ক্রিসেন্ট মডেল স্কুলের প্রধান শিক্ষক এস আহম্মেদ খান সাইফুল। তিনি জানান, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের পরামর্শে স্কুল বন্ধ রাখার এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত, কল্যাণপুরে এখনো বিপুল পরিমাণ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন হয়েছে। দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে করে অভিযানের বিষয়ে বিস্তারিত জানাবে পুলিশ।

Print Friendly, PDF & Email
basic-bank

Be the first to comment on "যেভাবে শুরু অভিযান, যেভাবে শেষ"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*