বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকদের ২৫ শতাংশ ১ম গ্রেড পাবেন

নিজস্ব প্রতিবেদক: অষ্টম জাতীয় বেতন কাঠামো নিয়ে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দীর্ঘ আন্দোলনের পর অবশেষে তাদের দাবি পূরণ হচ্ছে। তবে এজন্য কিছু শর্ত জুড়ে দিয়েছে সরকার। বৃহস্পতিবার বিকেলে সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত বেতন বৈষম্য নিরসন সংক্রান্ত্র মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের মধ্যে ২৫ শতাংশ অধ্যাপককে প্রথম গ্রেড দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এ সিদ্ধান্তে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও আনন্দিত।

সচিবালয়ে বেতন বৈষম্য নিরসন সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকের পর অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, দীর্ঘদিন পর একটা সমাধানে পৌঁছানো গেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা দ্বিতীয় গ্রেড থেকে প্রথম গ্রেডে এবং তৃতীয় গ্রেড থেকে দ্বিতীয় গ্রেডে পদোন্নতি পাবেন। তবে মোট অধ্যাপকদের ২৫ শতাংশ প্রথম গ্রেডে উন্নীত হবেন। এ জন্য কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে।

শর্তগুলো হলো- প্রথম গ্রেডে উন্নীত হতে হলে দ্বিতীয় গ্রেডে অন্তত দুই বছর চাকরি করতে হবে, অধ্যাপক হিসেবে চাকরির বয়স ১০ বছর হতে হবে, আর সর্বমোট চাকরি বয়স হতে হবে ২০ বছর। এখন একটি কার্যপত্র তৈরি করা হবে। তা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হবে। পরে আরো কিছু কাজ রয়েছে, তারপর এটা কার্যকর হবে।

অর্থ সচিব মাহবুব আহমেদ বলেন, প্রচলিত নিয়ম অনুসারে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা অধ্যাপক পদে পদোন্নতি বা পদায়ন পাবেন। অধ্যাপক পদে চার বছর কোয়ালিফায়িং চাকরির মেয়াদ এবং স্বীকৃত জার্নালে গবেষণাধর্মী নতুন দুটি আর্টিকেল প্রকাশের শর্তে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে দ্বিতীয় গ্রেডপ্রাপ্ত হবেন।

বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের মহাসচিব এএস এম মাকসুদ কামাল বলেন, দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হয়েছে। আমরা খুশি।

বৈঠকে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, আইনমন্ত্রী আনিসুল হকসহ বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের পক্ষে সংগঠনের সভাপতি ফরিদ উদ্দিন আহমেদ ও মহাসচিব এএসএম মাকসুদ কামাল উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, অষ্টম বেতন স্কেল ঘোষিত হওয়ার পর থেকে ৩৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা তাদের মর্যাদার অবনমন, বেতন বৈষম্যসহ চার দফা দাবির ভিত্তিতে কয়েক মাস আন্দোলন করেছেন। তারই ধারাবাহিকতায় গত ১১ জানুয়ারি থেকে ১৮ জানুয়ারি ৩৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা একযোগে কর্মবিরতি পালন করেন। পরে প্রধানমন্ত্রী গণভবনে ডেকে শিক্ষকদের সঙ্গে বৈঠক করেন। প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষকরা ৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তাদের কর্মবিরতি স্থগিত করার ঘোষণা দেন। এরপরে দাবি আদায়ে কয়েক দফা সরকারকে সময় দেন। একই সঙ্গে বেতন বৈষম্য নিরসন কমিটির সঙ্গে দাবি আদায়ে দেনদরবার করেন।

Print Friendly, PDF & Email
basic-bank

Be the first to comment on "বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকদের ২৫ শতাংশ ১ম গ্রেড পাবেন"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*